ঘুমের ওষুধ ও তার প্রতিকার

  • 0

ঘুমের ওষুধ ও তার প্রতিকার

Category : Health Tips

ঘুমের ওষুধ ও তার প্রতিকার

ঘুমের ওষুধ কি ?

ঘুমের ওষুধ (যেডেটিভ হিপনোটিকস) হচ্ছে সেই সকল মাদকদ্রব্য যেগুলো তন্দ্রা ভাব এবং নিন্দ্রা অবস্থার সৃষ্টি করে। এগুলো বিভিন্ন প্রাঙ্কলাইজারের অনুরূপ, কেবল পার্থক্য এই যে, নিদ্রা আনয়নে এগুলোর কার্যকারিতা অনেক বেশি এবং দীর্ঘস্থায়ী। বাংলাদেশে বর্তমানে অনেক ধরনের ঘুমের ওষুধ রয়েছে।

বার বিচ্যুরেটস

বারবিচ্যুরেটস প্রথমে তৈরি করা হয়েছিল অনিদ্রা, দুশ্চিন্তা ও মৃগীরোগের চিকিৎসা করার জন্য। সাধারণতঃ এগুলো ট্যাবলেট আকারে পাওয়া যায়, তবে ক্যাপসুল অথবা তরল আকারে পাওয়া যেতে পারে। বারবিচ্যুরেটসের কয়েকটি পরিচিত নাম হচ্ছেঃ সেকোনাল, টুইনাল, কেনোবার্ব, গার্ডিনাল ও এ্যামিটাল।

বারবিচ্যুরেটসের মত ঘুমের ওষুধঃ বারবিচ্যুরেটসের উপর ঘুমের অধিকমাত্রায় নির্ভরশীলতা পরিলক্ষিত হওয়ায় ট্রায়াজোলাম,ফ্লোরাজেপাস, মেথাকোয়ালনের মত ওষুধ বাজারে আসে। কিন্তু এগুলোতেও নির্ভরশীলতা সৃষ্টি হয়। এসব মাদকদ্রব্য ক্যাপসুল অথবা ট্যাবলেট আকারে পাওয়া যায়। এই জাতীয় ঘুমের ওষুধের কয়েকটি পরিচিত নাম হচ্ছেঃ ম্যানড্রেক্স, কখনও একে ম্যাক্সি বলে এবং ফ্লোরাপাম।

ঘুমের ওষুধসমূহের সবগুলোই বাংলাদেশে অবৈধ নয়। তবে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কখনও ঘুমের ওষুধ ব্যবহার করবেন না। ঘুমের ওষুধ গ্রহণের প্রতিক্রিয়া কি কি ?

ঘুমের ওষুধ শরীরকে নির্জীব করে ফেলে এবং ব্যবহারকারী তন্দ্রাভাব বোধ করে।

স্বল্প মাত্রায় প্রতিক্রিয়া

স্বল্পমাত্রায় ঘুমের ওষুধ শরীরে নির্জীব এবং কোনো কোনে ক্ষেত্রে নিস্তেজ অবস্থার সৃষ্টি করে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে অবশ্য উত্তেজনাভাবে বা অস্থিরতা সৃষ্টি করাতে পারে। অধিকাংশ ব্যবহারকারী ঘুমিয়ে পড়ে। অধিক মাত্রায় এসব মাদকদ্রব্য গ্রহণের ফলে মারাত্মক উত্তেজনা দেখা দেয়, সময় ও স্থান ও জ্ঞান এবং স্মৃতি শক্তি লোপ পায়, শ্বাস প্রশ্বাস ক্ষীণ হয়ে আসে, চৈতন্যহীনতা ও সংজ্ঞাহীন অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে এবং শেষ পর্যন্ত মৃত্যুও ঘটতে পারে। এ্যালকোহল অথবা ফেনসিডিলের মত অন্যান্য মাদকদ্রব্যের সঙ্গে এর ব্যবহার খুবই বিপজ্জনক। কেননা, এতে প্রতিক্রিয়া কয়েকগুণ বেড়ে যায়।

দীর্ঘ মেয়াদী প্রতিক্রিয়াঃ দীর্ঘদিন ব্যবহারের ফলে রক্তের স্বল্পতা, যকৃৎ অকেজো হয়ে যাওয়া, মাথা ধরা, দৃষ্টিশক্তি দুর্বল হয়ে যাওয়া, অসংলগ্ন কথাবার্তা ও হতোদ্যম হওয়াসহ বিভিন্ন লক্ষণ দেখা দেয়। আসক্ত মায়েদের গর্ভে জন্মগ্রহণকারী সন্তানদের শ্বাস প্রশ্বাস, খাদ্যগ্রহণ ও নিদ্রা সংক্রান্ত জটিলতা দেখা দিতে পারে।


Leave a Reply