টমেটোর যত গুন

  • 0

টমেটোর যত গুন

টমেটোর যত গুন

টমেটো  একটা ফল। আমরা খাই সব্জি হিসেবে। কাচা সালাতে, রান্না করে, তরকারিতে খাই। টমেটো কিছুটা টক। তবে যে টমেটো পানিতে ডুবে যার সেগুলো মধ্যে একটি মিষ্টি জাতের। প্রতি ১০০ গ্রাম টমেটোতে আছে ভিটামিন  এ ১০০০ আইইউ, ভিটামিন সি’ ২৩ মিলিগ্রাম, ক্যালসিয়াম ১১ মিলিগ্রাম, লৌহ ০.৬ মিলিগ্রাম, ফসফরাস ২৭ মিলিগ্রাম, পটাশিয়াম ৩৬০ মিলিগ্রাম এবং প্রোটিন ১ গ্রাম, আছে নিকোটনিক অ্যাসিড ও প্রচুর গ্লুটামিক অ্যাসিয় (৮৬-১৪০) গ্রাম। ১০০ গ্রাম টমোটো থেকে শক্তি পাওয়া যায় প্রায় ২০ ক্যালোরি। টমেটোতে পানির পরিমাণ প্রায় ৯৪ শতাংশ। টমেটো শরীরের জন্য খুব উপকারী। এর ভিটামিন এ ত্বককে সুন্দর রাখে। ভিটামিন সি’ স্কার্ভি প্রতিরোধ করে। ভিটামিন কে’  রক্তক্ষরণ করে।

নিকোটিন অ্যাসিড রক্তের কোলেস্টেরল কমায় এবং হৃদরোগ প্রতিরোধ টমোটে সহায়ক। গ্লুটামিক অ্যাসিড মস্তিস্ককে রাখে সুস্থ। টমেটোর পটাশিয়াম স্ট্রোক প্রতিরোধে কার্যকরী। হনলুলুর কুইন্স মেডিক্যাল সেন্টারের নিউরো সায়েন্স ইনস্টিটিউটের গবেষকরা দেখেছেন, খাদ্যে পটাশিয়ামে গ্রহণকারীদের তুলনায় স্ট্রোকের সম্ভাবনা দেড় গুণ বেশি।

লাইকোপনি নামক এক ধরনের শক্তিশালী অ্যান্টি অক্সিডেন্টের উপস্থিতির কারনে টমেটোর রং লাল। টমোটোর মতো বেশি লাইকোপিন আর কোনও ফল বা সব্জিতে আছে বলে জানা নেই।

লাইকোপিন শরীরের ফ্রি রেডক্যাগুলোকে নষ্ট করে দিয়ে কোষগুলোকে হেফাজত করে। লাউকোপিন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। জরায়ুর মুখ প্রষ্টেট, হৃদযন্ত্র, মলাশয়, পাকস্থলী, গ্রাসনালী ইত্যাদি অঙ্গের ক্যান্সার প্রতিরোধে টমেটো সহায়ক বলে বিভিন্ন গবেষণায় প্রমানিত। লাইকোপিন শরীরে তৈরি হয় না। তাই বাইরে থেকে এর সরবারহ প্রয়োজন। তা টমেটো চাই ই্। রান্নায় লাইকোপিন নষ্ট হয় না, বরং বাড়ে। তা টমেটো তরকারিতে দিয়ে রান্না করে খাওয়াও বাড়তি উপকার। দিনে তিন থেকে চারটা টমেটো খেলে এসব উপকার পাওয়া যাবে।

আফতাব চৌধুরি

সাংবাদিক ও কলামিষ্ট


Leave a Reply