বন্ধ্যাত্বের চিকিৎসা

  • 0

বন্ধ্যাত্বের চিকিৎসা

Category : health tips bangla

বন্ধ্যাত্বের চিকিৎসা

ইয়ামিন রেজা অত্যন্ত মায়াবী চেহারার একজন মহিলা। যেমন মায়াবী  চেহারা তেমন সুরুচিসম্পন্ন। প্রথম দৃষ্টিতেই নজর কাড়ে। ম্যাচ করে শাড়ি ব্লাউজ, কপালে ছোট একটা টিপ, কথা বলার ভঙ্গিটাও সুন্দর। ইয়ামিনকে আপাত দৃষ্টিতে হাশিখুশি মনে হলেও তার অন্তরে একটি গোপন ব্যথা, যে ব্যথা উপশমের জন্য তিনি আমার কাছে এসেছেন। তার বিবাহিত জীবন ১৫ বছর্ কিন্তু তিনি মা হতে  পারছেন না। ঢাকার নামী দামী সব চিকিৎসকরে দ্বারে দ্বারে ঘুরে  এমনকি ভারত ও সিঙ্গাপুরে পযন্ত গেছেন ইয়ামিন ও তার স্বামী রেজা সাহেব। কোন ফল না হওয়া শেষ পর্যন্ত আমার চেম্বারে এসেছেন দু জনই। সঙ্গে  একগাদা প্রেসক্রিপশন ও পরীক্ষা  নিরীক্ষার কাগজপত্র। একটি সন্তানের মুখ দেখার জন্য দু জনই মরিয়া। বড় আশা করে এসেছেন। ইয়ামিনের স্বামী একজন ব্যবসায়ী। টাকা পয়সার অভাব নেই। অভাব শুধু তুল তুলে মুখের ফুট ফুটে একটি বাচ্চায়।

ইয়ামিনের বয়স ৩৭ বছর। প্রায় শেষের দিকে এসেছেন আমার কাছে। বন্ধ্যাত্ব চিকিৎসা স্বামী এবং স্ত্রী উভয়ের পরীক্ষা নিরীক্ষার প্রয়োজন হয়। আদ্যপ্রান্ত হিস্ট্রি নিয়ে দেখলাম রেজা সাহেবের সব ঠিক আছে। ইয়ামিনের পিসিও বা পলিসিসটিক ওভারিয়ান মিনডোর ডিম্বাকোষের ওপর একটি মোটা আবরণ আছে যা ডিম্বুস্ফুটনে বাধা সৃষ্টি করে অর্থ্যাৎ ইয়ামিনের ডিম্বাফুটন হয় না। আমি তাদের আশ্বসত্ করলাম ধৈর্য ধরতে হবে এবং চিন্তামুক্ত থাকতে হবে। এক বছর চিকিৎসার পর ইয়ামিনের কোল  আলো করে ফুট ফুটে ছেলে শিশু জন্ম নিল। স্বামী স্ত্রী দু জনই আনন্দে আত্মহারা। আমিও খুশি। পরম করুণাময়ের কাছে শুকরানা আদায় করলাম। এমনি আরও ঘটনা আছে যার সাফল্যে আমি দু হাত তুলে আল্লাহর কাছে কৃতজ্ঞতা জানাই। প্রকৃতপক্ষে আমার এবং যে কোন চিকিৎসকের সাফল্যেল মালিক আল্লাহ। আমি একটি উপলক্ষ মাত্র।

 

অধ্যাপিকা ডাঃ সুলতানা জাহান

ধানমন্ডি, সড়ক ৮/এ

বাড়ি-৮১,  ঢাকা।


Leave a Reply