কে খাবেন ভিটামিন কে

  • 0

কে খাবেন ভিটামিন কে

দেহে রক্ত জমাট বাঁধার জন্য দরকার যে ভিটামিনটি সেটা হলো চর্বিতে দ্রবণীয় ভিটামিন কে।

উত্তস্য: সবুজ শাকসবজি যেমন:- ফুলকপি, বাঁধাকপি, লেটুস, মটরশুটি, পালংশাক, সয়াবিন, দুধ, কলিজা। এছাড়া মানব দেহের অন্ত্রে অবস্থিত জীবাণুরা ভিটামিন কে তৈরিতে সক্ষম।

১. প্রধান কাজ হচ্ছে রক্তজমাট বাধার জন্য দরকারি চারটা বিশেষ প্রোটিন তৈরিতে সাহায্য করা। প্রোটিনগুলো হচ্ছে – ফ্যাক্টর-২, ফ্যাক্টর-৭, ফ্যাক্টর-৯, ফ্যাক্টর-১০। এদের কে একসঙ্গে প্রাথ্রাম্বিন বলে।

২. কোষের শ্বাস প্রশ্বাসের কাজে সহায়তা করা।

৩. দেহের অভ্যন্তরে ইলেকট্রন বহনে সহায়তা করা।

অভাবজনিত অবস্থা : দেহে এর অভাবের ফলে রক্তে প্রোথ্রম্বিনের মাত্রা কমে যায় এবং এর কারণে রক্তজমাট বাঁধতে বিলম্ব হয়। এর সঙ্গে সঙ্গে রক্ত ক্ষয়জনিত দুর্বলতা ও অসুস্থতা দেখা যায়। গর্ভাবস্থায় মা যদি কম ভিটামিন কে গ্রহণ করেন, তাহলে তার নবজাত শিশুটিও যকৃতে কম কে নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। এ সময় কোনো কারণে শিশুটির রক্তক্ষরণ হতে তা সহজে বন্ধ হয় না। অপ্রতুল পিত্তরস নির্গমনের সঙ্গে ভিটামিন কে এর সম্পর্ক আছে। কোনো কারণে পিত্তরস নির্গমন বাধাপ্রাপ্ত হলে কে এর অভাবজনিত রক্তক্ষরণ দেখা যায়। পেটের অসুখে বেশিদিন এন্টিবায়োটিক ওষুধ সেবনের ফলে অন্ত্রের জীবনুসহ ধ্বংস হওয়ার কারণে ভিটামিন কে এর অভাবজনিত অবস্থা দেখা যায়।

চাহিদা: জন্মের পরই শিশুদের আধা মিলিগ্রাম ভিটামিন কে খাওয়ানো জরুরি। কারণ নবজাত শিশুর অন্ত্র জীবাণুশূণ্য ও এদের রক্তজমাট বাঁধার উপাদানসমূহ অল্প পরিমাণে থাকে। প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য ১ মাইক্রোগ্রাম। অবশ্য খাদ্যবস্তুতে এর অসম বন্টন ও ব্যাক্তিতে ব্যাক্তিতে ভিটামিন কে শোষণের পার্থক্যের জন্য চাহিদার ক্ষেত্রে তারতম্য ঘটে। বিভিন্ন খাদ্যবস্তুতে ভিটামিন কে এর পরিমাণ খাদ্যবস্তু               ভিটামিন কে

                                        (মিলিগ্রাম/১০০  গ্রাম)

ফুলকপি                 ২৭৫

বাঁধাকপি                ২৫০

পালংশাক               ৩৩৪

মটরশুটি                ১১০

সয়াবিন                 ১৯০

কলিজা                  ১১৫-২৩০

গরুর দুধ               ৬

মায়ের দুধ              ২

(সুত্র: বিপাক ও পুষ্টিবিজ্ঞান, সৈয়দা হালিমা রহমান)


Leave a Reply