শিশু কিশোরদের ডায়াবেটিস

  • 0

শিশু কিশোরদের ডায়াবেটিস

Category : Health Tips

শিশু কিশোরদের ডায়াবেটিস

ডা. শাহজানা সেলিম

শৈশবে যেসব অসুস্থতা শিশুর মানসিক ও শারীরিক বৃদ্ধিকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করে ডায়াবেটিস মেলাইটাস আর অন্যতম। শরীরের কোষগুলোর বেচে থাকতে ও জৈবনিক বিক্রিয়াগুলোকে পরিচালিত করতে শক্তি দরকার হয়, যা কোষগুলো গ্লুকোজ বেড়ে যায়। অগ্ন্যাশয় থেকে নিঃসৃত হরমোন, ইনসুলিন রক্তে রূপান্তর পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে এবং কোষের ভেতরে গ্লুকোজের প্রবেশ ও কোষে এর ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করে। ইনসুলিন ছাড়া বেচে থাকা সম্ভব নয়। যদি কোন কারণে দেহে ইনসুলিনের পরিমাণ কমে যায় বা ইনসুলিন ঠিকমতো কাজ করতে না পারে তবে গ্লুকোজ দেহ কোষের বাইরে জমা হয় এবং একটা সময় পর এই গ্লুকোজ প্রসাবের সাথে বের হয়ে আসতে থাকে।

অধিকাংশ শিশুর ডায়বেটিস হয় অগ্নাশয়ের প্রয়োজনীয় পরিমাণ ইনসুলিন তৈরি করতে ব্যর্থ হওয়ার কারণে (টাইপ ১ ডায়বেটিস)। এছাড়া ইনসুলিন যথেষ্ট পরিমাণে নিঃসৃত হওয়ার পর যদি তা যথাযথভাবে কাজ করতে না পারে তাহলেও ডায়বেটিস (টাইপ ২ ডায়াবেটিস) হয়। এ ক্ষেত্রে যেসব কোষের জন্য ইনসুলিন কাজ করে তার সমস্যা থাকতে পারে বা ইনসুলিনের নিজেরও গাঠনিক সমস্যা থাকতে পারে। এসব রোগীর দেহে ইনসুলিনের বিপক্ষে প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হয়। আবার কিছু শিশু কিশোর টাইপ ১ ও টাইপ২ উভয় প্রকার ডায়বেটিসকেই একসঙ্গে আক্রান্ত হয়।

আর্ন্তজাতিকভাবে কার্যকরনের ওপর ভিত্তি করে ডায়াবেটিসকে নিম্নরূপে শ্রেণীবিন্যাস করা হয়ে থাকে।

টাইপ ১ ডায়াবেটিসঃ এই ডায়াবেটিসে অগ্নাশয়ের বিটা লক্ষণগুলো (ইনসুলিন উৎপাদনকারী কোষ) বিনষ্ট হয়ে থাকে। অগ্নাশয়ের বিটা কোষগুলোর ধ্বংসের কারণ  দেহের ভেতরেও থাকতে পারে (ইমিউন মেডিয়েটেড ডায়াবেটিস মোলাইটাস) অজানা কারণেও বিটা কোষ ধ্বংস হতে পারে।

টাইপ-২ ডায়াবেটিসঃ  এ রোগ দেহের ভেতরে ইনসুলিনের মাধ্যমে বিরোধী প্রক্রিয়া চালু হয়ে থাকতে পারে। ফলে ইনসুলিন নিঃসরনের হার আগের মতোই বা এর চেয়ে বেশি হলেও ইনসুলিনের অভাবে দেহে যেসব অবস্থা হয় সেরূপ হয় পরিলক্ষিত হতে থাকে। অর্থ্যাৎ এখানে ইনসুলিনের সুপ্রভ ঘাটতি থাকে।

তিন গর্ভাধারণ সর্ম্পকিত ডায়াবেটিসঃ এ রকম ডায়াবেটিস গর্ভকালীন সময়েই প্রথম ধরা পড়ে বা এ সময়ই প্রথম দেখা যায়। এছাড়া অন্য কিছু কারণেও ডায়াবেটিস হতে দেখা যায়। টাইপ ১ ডায়াবেটিস প্রথমবারের মতো নির্ণয়ের ক্ষেত্রে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বা দেশের ভেতর বিভিন্ন এলাকা বা বিভিন্ন দৃষ্টিতে বিভিন্ন রকম সংখ্যা দেখা যায়। ১ বছর বয়সের শিশুদের ডায়াবেটিস হতে দেখা যায় না। ১০ থেকে ১৪ বছর বয়সীদের মধ্যে ডায়াবেটিস ভোগার বেশ প্রবণতা লক্ষ্য করা গেছে। টাইপ-১ এর কারণ হিসেবে জিন ঘটিত ……ডিসঅর্ডার (দেহের রোগ প্রতিরোধী বৈশিষ্ট্যওয়ালা কোষগুলো দেহের প্রোটিনকে চিনতে ভুল করে এবং এর বিরুদ্ধে বিরোধ গড়ে তোলে)। পরিবেশগত কারণ (ভাইরাস ভ্রমণ ম্যাম্পস, কক্সাকি ইত্যাদি) কাজ করে। রক্তে কিটো রক্তের পরিমাণ বেড়ে যাওয়া টাইপ ১ ডায়াবেটিসের প্রধান ও অন্যতম জটিলতা। এতে অনেকের মৃত্যুও হয়। পৃথিবীর কিচু দেশে টাইপ ১ ডায়াবেটিসের রোগীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। ১৯৯৮ – ২০০১ এই ৩ বছর আগের ৩ বছরের চেয়ে শতকরা ৪০ ভাগ টাইপ ১ ডায়াবেটিস হতে দেখা গেছে।

শিশুদের সাধারণত টাইপ ২ ডায়াবেটিস হয় না। তবে উন্নয়নকামী দেশগুলোর মানুষের দৈনিক স্থুলতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে টাইপ ২ ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে। এব দেশে টাইপ ২ ডায়াবেটিসের রোগীর সংখ্যা টাইপ ১ ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যার আট গুন। ফাস্টফুড জাতীয় খাবারের প্রতি ক্রমবর্ধমান আসক্তি ( কোকাকোলালাইজেশন), কম হারে দৈহিক পরিশ্রম বা ব্যায়াম করা দেহের আকার আকৃতি ও ওজন বাড়ায় এবং পরিণামে টাইপ ১ ডায়াবেটিসের রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এখানে ইনসুলিনের পরিমাণ হয়ত স্বাভাবিক বা তার চেয়ে বেশি থাকছেঃ কিন্তু দেহের কোষীয় পর্যায়ে ইনসুলিন ডায়াবেটিস হওয়ার একটি প্রধান কারণ।

বাংলাদেশে বারডেম ছাড়া ডায়বেটিসের চিকিৎসা ও গবেষনা আর কোন প্রতিষ্ঠান নেই। সরকারী বেসরকারী পর্যায়ে যদি তালিকা তৈরি করা হতো, তবে ডায়বেটিসে আক্রান্ত অনেক শিশু কিশোরকে প্রাথমিক পর্যায়ে শনাক্ত করা যেত। আমাদের দেশে যেসব কিশোরের ডায়বেটিসে শনাক্ত করা গেছে তারা পিডিপিডি শ্রেণীর এবং তাদের অগ্ন্যাশয়ে পাথর ছিল। এটাও দেখা যাচ্ছে, দিন দিন শিশু কিশোরদের মধ্যে টাইপ ২ ডায়াবেটিস আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এটি আতঙ্কজনক।

শিশুদের ডায়াবেটিসের লক্ষণাদি বড়দের মতোই। এর মধ্যে সবচেয়ে প্রকট হলো ঘন ঘন প্রস্রাব হওয়া, অধিক পিপসা ও ক্ষুধা পাওয়া, দৈহিক দুর্বলতা ও খাবার রুচি বেশি থাকা স্বত্তেও ওজন কমতে থাকা ইত্যাদি। শিশুর বেড়ে ওঠার সময়ের মধ্যে কোন একবার যদি ডায়াবেটিস হয় তবে তা যেমন তাকে সারা জীবন বহন করতে হবে তেমনি এই ডায়াবেটিস তার দৈহিক ও মানসিক বৃদ্ধিকে ব্যাপকভাবে  বাধাগ্রস্থ করবে। এর ফলে তার বয়োসন্ধিকালও দেরিতে আসতে পারে।

শিশু কিশোরদের ডায়াবেটিস চিকিৎসা করার আঘে ৪ টি লক্ষ্য স্থির করা হয়। ১) ডায়াবেটিক কিটোএসিভোসিসের ক্ষেত্রে নিরাপদ ও জটিলতামুক্ত আরোগ্য লাভের উপায় ব্যবহার করা ২) রক্তের গ্লুকোজ খুব বেশি যেন না কমে সে ব্যাপারে ব্যবস্থা করা। ৪) শিশুর স্বাভাবিক দৈহিক ও মানসিক বৃদ্ধির জন্য যতটা সম্ভব প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া।

ডায়াবেটিস একটি দীর্ঘসুত্রী রোগ। এটা যে কতটা জটিলতা তৈরি করতে পারে তা এখনও পুরোপুরি নির্ধারিত হয়নি। কিন্তু দেহের এম কোন অঙ্গ প্রত্যঙ্গ নেই যা ডায়াবেটিসের জটিলতায় আক্রান্ত হয় না। উদাহারণস্বরূপ দৃষ্টিশক্তি হারানো বা অন্ধত্বের প্রধান কারণ হলো ডায়াবেটিস। ডায়াবেটিস থেকে রেটিনোপ্যাথি, নেফ্রোপ্যাথি ও নিউরোপ্যাথি হয়। হৃদপিন্ডের ধমনীর অসুখ, হার্ট  এ্যাটাক হতে পারে, বিভিন্নরকম কর্মবিরোধী প্রক্রিয়া চালু থাকায় ইনসুলিন ঠিকমতো  কাজ করতে পারে না। শিশু কিশোরদের টাইপ ২ ডায়াবেটিস হলে বয়স্কদের মতো তারাও হার্ট এ্যাটার্ ও স্ট্রোকসহ আরও কিছু ভয়াবহ পরিণতির শিকার হয়। আর এসব জটিলতা বেশ কম বয়সেই দেখা দেয়। এসব সমস্যা শিল্পোন্নত দেশগুলোতে আরও প্রকট। সেসব এমন ভয়াবহতার হাত থেকে জনগণকে বাচানোর জন্য জীবনযাপনের মৌলিক পরিবর্তনের (খাদ্যভ্যাসের পরিবর্তন, নিয়মিত ব্যায়াম ও ধুমপান ত্যাগ ইত্যাদি) পক্ষে ব্যাপক প্রচারণা চালানো হচ্ছে। বাংলাদেশের শিশুরাও এ ধরনের সমস্যায় ভোগে। অভিজাত শ্রেণীর স্থুলকায় শিশুরা টাইপ ২ ডায়াবেটিসে অনেক বেশি আক্রান্ত হয়। নাদুসনুদুস হওয়া ও শারিরীক পরিশ্রম না করা অভিজাত্য ও সুস্বাস্থ্যের লক্ষণ এরূপ ভ্রান্ত ধারণা মুল্যবান শিশুদের ভয়ঙ্কর পরিস্থিতর দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

বাংলাদেশ ও ভারতে কিছু কিছু এলাকা এবং আফ্রিকা ও জ্যামাইকাতে বিশেষ কিছু ধরনের ডায়াবেটিস দেখা যায়। আগে এটিকে অপুষ্টিজনিত ডায়াবেটিস বলা হতো। এদের মধ্যে আবার দুই শ্রেণীর রোগী আছে। একশ্রেণীর রোগীকে  এফসিপিডি (ফাইব্রেট ক্যালকুলাস প্যানক্রিয়েটিক ডায়াবেটিস) বলে। অন্য শ্রেণীর রোগীরা পিডিপিড (প্রোটিন ডেফিসিয়েন্সি প্যানক্রিয়েটিক ডায়াবেটিস) দলভুক্ত। এফসিপিডি শ্রেণীর রোগীর অগ্ন্যাশয়ে পাথর থাকে; কিন্তু পিডিপিডি শ্রেণীভুক্তদের অগ্ন্যাশয়ে পাথর হয় না। এ ধরনের রোগী খুব হাল্কা পাতলা হয় এবং এদের দেহে অপুষ্টিজনিত বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা দেখা যায়। অনেকের চোখে ছানিপড়া ও স্নায়ুবিক দুর্বলতা থাকে। তাদের চিকিৎসায় অধিক মাত্রায় ইনসুলিন ইনজেকশন হিসেবে দিতে হয়। তবে তাদের ডায়াবেটিরে তীব্রতার তুলনায় রক্তে কিটো এ্যাসিড বৃদ্ধির পরিমাণ কম। এ   রোগের প্রকৃত কারণ জানা যায়নি, তবে প্রচেষ্টা চলছে। এই গবেষকদলে আমাদের বারডেমের স্বাস্থ্য বিজ্ঞানীরাও আছেন।

পরিবেশজনিত কারণগুলো ছাড়াও গর্ভকালীন মায়ের অপুষ্টি, কম ওজন নিয়ে জন্মানো ইত্যাদি কারণও দিন দিন গুরুত্ব পাচ্ছে। আমাদের দেশে ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ নবজাতক আড়াই কেজির কম ওজন নিয়ে জন্মায়। বাংলাদেশে বিপুলসংখ্যক লোকের অঙ্গ প্রত্যঙ্গে ছোট ছোট রক্তনালীর অসুখ এবং  স্ট্রোকের অন্যতম কারণ হলো ডায়াবেটিস। ডায়াবেটিস রোগীর জীবানুর সংক্রমণ হলে সহজে সারে না। ডায়াবেটিস রোগীদের পায়ের পাতায় ঘা হওয়া ও সে ঘা সহজে সেরে না ওঠা একটি কঠিন সমস্যা। ডায়াবেটিসের সঙ্গে যদি উচ্চ রক্তচাপ ও রক্তের লিপিডের পরিমাণ বেশি থাকে, তবে তা ভয়ঙ্কর কোন অবস্থার দিকে ঢেলে দিতে পারে রোগীকে। তাই ডায়বেটিস রোগীর চিকিৎসায় রোগীকে ধৈর্যশীল হতে হবে। ডায়াবেটিসের চিকিৎসায় গুরুত্বপূর্ণ হচেছ সঠিক পুষ্টি পরিকল্পনা। প্রথমবার যাদের ডায়াবেটিস আছে বলে শনাক্ত করা হয় তাদের অন্ততপক্ষে অর্ধেক শুধু সঠিক পুষ্টি এবং সুষ্ঠু, উপযোগী ও সুশৃঙ্খল জীবনযাপনের ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করেই ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। বাকি অর্ধেকের রক্তে গ্লুকোজ কমানোর জন্য মুখে খাবার ট্যাবলেট লাগতে পারে। তাদের সবার জন্যই পরিমিত ও নিয়মিত ব্যায়াম অপরিহার্য। কারও কারও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের জন্য ত্বকের নিচে ইনসুলিন ইঞ্জেকশন নিতে হতে পারে। তবে ওষুধ যে রকমেই নেয়া হোক না কেন খাওয়া দাওয়া পুঙ্কানুপুঙ্খবাবে মেনে চলা এবং নির্দিষ্ট মাত্রায় ব্যায়াম করা সবচেয়ে জরুরী। জীবনযাপনকে একটি সুশৃঙ্খল ধারার মধ্যে নিয়ে আসতে হবে, যা পরবর্তী সারাটা জীবনে পালনীয়। জীবনঘাতী জটিলতা এড়ানোর জন্য রোগের শুরুতেই চিকিৎসা শুরু করে দিতে হবে। আমাদের দেশে যেসব শিশু কিশোর ডায়াবেটিসে ভোগে, তাদের বেশিরভাগই ডায়াবেটিসজনিত জটিলতা নিয়েই প্রথমবার চিকিৎসকের কাছে যায় এর ফল যথেষ্ট ভাল হয় না।

সঠিক চিকিৎসা ও সুশৃঙ্খল জীবন যাপন ও পরিমিত পুষ্টি নিশ্চিত করতে পারলে ডায়াবেটিস আক্রান্ত শিশু কিশোররাও প্রায় স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারে। তাই এ ব্যাপারে যথেষ্ট সচেতনা থাকা জরুরী।

বারডেম একাডেমী, শাহবাগ, ঢাকা

চেম্বার ফার্স্ট ল্যাবঃ ০১৯১১- ৫৬৬৮৪৩


Leave a Reply