হাইপারটেনশন সেন্টার

  • 0

হাইপারটেনশন সেন্টার

“হাইপারটেনশন সেন্টার”

হাইপারটেনশন রোগীদের সব সময় একটি নিয়মিত চেকআপের মধ্যে থাকতে হয়। এ ব্যাপারে সহযোগীতা প্রদানের জন্য ঢাকায় গড়ে উঠেছে ‘হাইপারটেনশন সেন্টার’ গ্রীন রোডস্থি এই সেন্টারে যে কোন রোগী প্রথমে এসে ২০ টকার বিনিময়ে আউটডোর চেকআপ করাতে পারেন। যদি আউটডোর চেকআপে দেখা যায়, রোগী ব্লাড প্রেসার জাতীয় সমস্যা করে নেয়া হয়। সেন্টারের সদস্য না হলে রোগী কোনো রকম নিয়মিত চিকিৎসা পাবে না। ১০০ টাকার বিনিময়ে হাইপারটেনশন বা ব্লাড প্রেসারের যোকোনো রাগী ’হাইপারটেনশন সেন্টার’ এর সদস্য হতে পারে। সদস্য হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে রোগীর নামে একটি পার্সেনালা ফাইল খোলা হয়। ফাইলের মধ্যে রোগীর যাবতীয় তথ্য লেখা থাকে।  এছাড়া রোগীর নামে একটি রেকর্ড বই থাকে। যাতে রোগীর নিয়মিত ব্লাড প্রেসারের পরিমাণ থেকে চিকিৎসা বিষয়ক সব রকম তথ্য থাকে। কোন রোগী সদস্য হওয়ার পর আবার ডাক্তারের সঙ্গে দেখা করতে কোন প্রকার টাকা দিতে  হয় না। শুধু এক বছর পর ১০০ টাকার বিনিময়ে সদস্য পদ পুনরায় নবায়ন করতে হয়। এছাড়া কোন প্রকার কনসালটেন্সি প্রয়োজন হলে হাইপারটেনশন সেন্টার তার ব্যবস্থা করে। এর জন্য রোগীকে কোন প্রকার আলাদা টাকা দিতে হয় না। এছাড়া এখানে বাড়তি সুবিধা হিসেবে আছে প্যাথলজি সুবিধা। এখানে কোন রোগী আসার সঙ্গে সঙ্গে তাকে কতোগুলো  রুটিন চেকআপ করতে হয়। রোগী খুব স্বল্প মূল্যে এখানে প্যাথলজি চেকআপ করাতে পারে। পরবর্তী সময়ে সদস্যদের প্যাথলজি চেকআপের ওপর শতকরা ১৫ টাকা করে কমিশন দেয়া হয়। বর্তমানে এখানে সকাল বিকাল দু বেলা চিকিৎসা সুবিধা প্রদান করা হয়। শুক্রবার ব্যতীত সপ্তাহের প্রতিদিন সকাল ৯ টা থেকে ২ টা এবং বিকাল ৩ টা থেকে ৭ টা পর্যন্ত চিকিৎসা সুবিধা দেয়া হয়। সুতারাং আপনার হাইপারটেনশন থাকলে টেনশন কমাতে যোগাযোগ করুন হাইপারটেনশন সেন্টারে।


Leave a Reply