Category Archives: Health Tips

  • 0

An Ambulance is a route to medical emergencies

Starting a day with a team of the Medical Emergency System: a couple of accidents, a stroke and a suicide attempt in everywhere in Dhaka city.

Barely 10 minutes past 9.30 in the morning, rush hour in Dhaka. Traffic congested the city from North to South. The coordination center of the Desh Ambulance Service (Desh) warns by radio of an accident at the Mirpur 1 busy area. Ekramul Haque, territorial head of the Desh Ambulance in Dhaka city, activates the siren and changes the direction of the intervention vehicle he drives. On the roof of the car, a blue light alarm tries to disperse the crowd. It seems a minor accident, with a taxi and a motorcycle involved. “They are usually minor injuries, erosions or falls. In summer, it happens to be poorly protected, with parts of the body in the air ”, explains Haque. A medicalized ambulance and another with a technician and a nurse are also on their way.

Haque steps on the accelerator and begins defensive driving. This means that you can do what you want – skip traffic lights, exceed the allowed speed – but always at your own risk. When he arrives at the scene of the accident, Masudur Rahman, Urban Guard and a couple of para medic of Desh ambulances are already taking care of those affected. “The biker has abrasions on the leg. He will go to the hospital on his own, ”summarizes a nurse. The First Aid teams finish the service and return to the base until further notice.

 

When a citizen calls 01790509607, the coordination center of the Desh – it has a headquarters in Dhaka Mirpur area and another in Dhaka -, starts up to meet the demand and activate the necessary resource. “This is the brain of Desh. We receive all calls, from an emergency to a consultation, and the most appropriate solution is given, ”explains the chief of the Desh Ambulance Team,  Khaled Mosharrof, from the command room. In Dhaka there are More than 500 ambulances are active, 20% of basic life support, formed by one health technicians. In addition, in Dhaka city there has no helicopters strategically located in the city.

On the way through the city, the Mobile Phone sounds again: a rider with passenger of Pathao has injured. It happens often. The Desh handles more than one case daily.

“A person has an episode of agitation and does not have to be linked to a mental disorder. There is a very fine line that separates mental disorder from everyday stress that can overwhelm people. And if you have taken drugs, this can cause organic or psychic disorders, ”explains a team member of Desh.

It is 12.51 noon and the radio sounds again, a woman with a possible stroke from Dhanmondi area. Stroke is, along with myocardial infarction, two of the pathologies where time is crucial for the patient’s prognosis. Several emergency teams move to the place of the warning and the central activates, a coordination device to have all the resources prepared, from the ambulance to the transfer hospital, to attend the patient in the shortest possible time.“These diseases are time-dependent. There is a part of the time that depends on the health system, since the call comes in, a supply is generated, the ambulance is sent and it takes the patient to a hospital for better treatment. But there is another part that depends on the patient or his environment, which is the time it takes to notify us. What it takes to notify us because of chest pain or because it stops moving a part of the body, is the time when the heart or brain is dying, ”Khaled explains. When the doctor arrives with his vehicle, the ambulance is already starting at the closest Clinic hospital. It’s been 15 minutes since the call. There, the neurology team is already on notice and ready to receive the patient.

On the way to the Square Hospital central, the mobile phone returns to launch an alert: a suicide attempt of a minor admitted to the Dhaka Medical College Hospital. Several units have already moved to the place. DMCH also has the Suicide Risk Code, another coordination device between medical services to detect and monitor suicide attempts. In this case, in addition to the initial intervention to stabilize it, the child will remain under the control of child and adolescent health services for at least one year.

Khaled is an expert in emergencies and has coordinated emergency work on earthquakes and hurricanes. Despite everything, he says: “This is the most beautiful job in the world. You provide a chance of survival. You reach out to that entire person’s continuity until we are here. ” And the Mobile Phone sounds again.

 

 


  • 0

The goal is to increase institutional delivery, improve ambulance service MA pass Sudharani

After the passing of the MA, everyone dreams of a secure future with a good job. Sudharani Singh, the daughter of Shyamguch village in the middle of the Chopra block, Panchayat, also had that dream. But not for yourself, but for others. The steering of her hands is in pursuit of this dream.  Should a pregnant be taken to a health center at Aj Paargaon overnight?

Only news reached Sudhrani. He will reach the ambulance and hurry there. Not once or twice, he does it repeatedly. With this contribution, the health department also acknowledges that the rate of institutional delivery has increased considerably in the area. Dr Jahangir Alam, a BMOH at Dalua Block Health Center, blamed the contribution of the improvement known as ambulance sister to many in the area. In her words, the private delivery of the young woman has reduced the rate of domestic delivery in the area.

Sudha Rani

Sudha Rani

Simple, the mind is always nervous. So after the post graduation, when the rest of the people are very busy in the job test, the youngest of five siblings did not want to float in mere waiting. He took two years of training to get a career in driving. Then the ambulance operates through a mediocre union. And since then, life has changed like magic. It was reported on the mobile that someone had to be taken to the hospital for delivery. Sudharani appeared there with his vehicle.

Only the nearest hospital? How many times did the patient have to go to Islampur subdivision hospital 40 km away or to North Bengal Medical College and Hospital 50 km away? Being a girl is not afraid to travel so far with the ambulance? Sudharani laughs at the question. She said, that is not the first fear that seemed a little daunting. But because I am a girl myself, I understand the pain of another girl. Ambulance Service from dad Subal Singh and others in the family added to the strength of Didi’s mind.

Asmatara Begum, chief of the Chhatra Panchayat Samiti, the leader of the Chhatra Panchayat Samiti, said that an ambulance was given to the mediation team from the border area development fund by handing over Chief Minister Mamata Banerjee. With the aim of increasing the institutional delivery rate in the area. The member of the Sangh has been running it for two years. The rate of institutional delivery has increased significantly in his ambulance service area. Everyone is appreciative. Sudharani said, “Every time I get some money from the Sangha in exchange for taking the intestines to the hospital.” That’s my only income. But not so, if I get monthly salary has a system, I can do it better.

 


  • 0

Aerobic exercise at home

Aerobic exercise is the kind of exercise that causes the heartbeat to accelerate and the body begins to sweat. Examples include walking, bicycling, jogging, rope jumping, running, aerobic dancing, swimming. For a healthy person, aerobic exercise for 30 minutes is essential every day. But anyone can do more if they want. But it will depend on his physical fitness and ability. According to researchers, 300 minutes of aerobic exercise per week is enough for a healthy person.

Aerobic Exercise

Aerobic Exercise

Aerobic exercises can release a type of chemical called endorphin, which reduces depression. Likewise, calories are easily lost as a result of such exercises, resulting in weight loss. So, aerobic exercises can play an important role in weight loss. If a person exercises aerobic for 30 minutes a day, then metabolism is most effective for the next one hour.

Aerobic exercise reduces the risk of heart disease, increases lung function, and strengthens the body’s long and lean muscles (thigh muscles). First of all, stay healthy and strong. However, for those who are beginning to exercise, or are suffering from heart disease or other physical problems, it is important to consult an expert before exercising.

Before starting any aerobic exercise it is important to complete the warm-up and cooling process. In this case loose clothing and comfortable shoes should be worn. It is possible to do aerobic exercise at home without going out.

Such As:

Jogging Jump

■ Stand with two legs open.

■ Jump with two hands up. Jogging jump burns 100 calories in 10 minutes.

■ Each jump can take 30 to 60 seconds for up to 10 to 30 minutes.

 

Rope Leap

■ Twenty minutes burns approximately 220 calories.

■ Although it is straightforward to look at, it is a high quality aerobic exercise.

■ Do this exercise for 10 to 30 minutes.

You can do any exercise for 30 minutes. Again, do any three aerobic exercises for 10 minutes each for total 30 minutes. For example: jogging, jogging jumps and rope jumps.

Physiotherapy consultant, PTRC


  • 0

The benefits of drinking Lemon Juice regularly in the morning.

The benefits of drinking Lemon Juice regularly in the morning.

We usually use lemon to enhance the taste of the food and to make the syrup on a hot day. But its benefits do not end there. Lemon contains vitamin C and minerals that help the lungs function properly to reduce our heart rate. And it is better to drink Lemon Juice in the morning. If you drink one cup of lemon water in the morning, your body will have magical benefits.

“Read More”

  • 0

হাঁটুর জোড়ার রোগে আর্থোস্কোপি

হাঁটুর জোড়ার রোগে আর্থোস্কোপি

হাঁটু শরীরের বড় জোড়াগুলোর মধ্যে একটি এবং শরীরের ওজন বাহন করার ক্ষেত্রে অন্যতম ভুমিকা পালন করে। জোড়ার বিভিন্ন ধরনের রোগ ও ইনজুরিতে হাটু আক্রান্ত হয় বেশি। হাটু তিনটি হাড়, চারটি লিগামেন্ট ও  দুইটি মেনিসকাস সমন্বয়ে গঠিত। জোড়ার ভেতর ও বাহিরের গুরুত্বপূর্ণ লিগামেন্টগুলো জোড়াকে সুরক্ষা করে এবং দৈনন্দিন হাটুর বিভিন্ন নড়াচড়ায় সহায়তা করে। মেনিসকাস দুই হাড়ের মাঝখানে অবস্থান করে শরীরের ওজন সমভাবে বিতরণ করে এবং হাড়কে ঘর্ষন হতে রক্ষা করে। চিকিৎসা বিজ্ঞানে যতটুকু উন্নতি সাধিত হয়েছে তার অধিকাংশ হয়েছে একুশ শতকের গোড়ার দিকে। এর ধারাবাহিকতায় যন্ত্রের সাহায্যে চিকিৎা ব্যবস্থা বর্তমানে সময়ে কল্পনাতীত সুখ্যাতি অর্জন করেছে। হাড় ও জোড়ার সমস্যার চিকিৎসার ক্ষেত্রে অকল্পনীয় উন্নতি হলেও আমাদের দেশে অত্যাধুনিক যন্ত্রের সাহায্যে, চিকিৎসা সীমিত আকারে শুরু হয়েছে। হাড় ও জোড়ার চিকিৎসার এক সফল ও কার্যকর সমাধান এনেছে বিষ্ময়কর আর্থোস্কোপিক সার্জারি। এটি হলো অর্থোপেডিক সার্জারি। এটি হলো আর্থোপেডিক চিকিৎসায় বর্তমান যুগের সর্বশেষ ও সর্বাধুনিক পদ্ধতি। ছোট ছিদ্রের মাধ্যমে ক্যামেরা যুক্ত যন্ত্র (স্কোপ) জোড়ায় প্রবেশ করিয়ে এবং যন্ত্রের সাথে যুক্ত বাহিরে টিভি স্ক্রিন বা মনিটার দেখে অপারেশন করা হয়।

হাঁটুর রোগের লক্ষণসমূহঃ

মাঝে মধ্যে হাটু ফুলে আবার স্বাভাবিক হয়। ব্যথা হয় এবং নড়াচড়ায় ব্যথা বেড়ে যায়। অনেকক্ষণ হাটু ভাজ করে বসার পর হাটু সোজা করা যায় না; এদিক ওদিক নড়াচড়া করে হাঁটু সোজ করতে হয়। হাঁটু সম্পূর্ণ ভাজ বা সোজা করা যায় না।

জয়েন্ট ছুটে যাবে বা ঘুরে যাবে এরকম মনে হবে, বিশেষ করে অসমতল জায়গায় হাটলে। সিড়ি দিয়ে উঠানামা করতে এবং বসা থেকে দাড়াতে কষ্ট হয়। হাটু ভাজ ও সোজা করলে মনে হবে কিছু একটা জোড়ায় ঢুকছে এবং বের হচ্ছে। প্যাটেলা বা নি ক্যাপে ব্যথা এবং হাটু ভাজের সময় আংশিক বা সম্পূর্ণ স্থানচ্যূতি হয়।

আর্থ্রোস্কোপিক চিকিৎসাঃ

ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইনজুরির ক্ষেত্রে নতুন লিগামেন্ট পুনঃস্থাপন করা হয়। মেনিসকাস ইনজুরি হরে রিপেয়ার বা সেলাই করা হয়। ক্ষেত্র বিশেষে সেভিং করা হয়  এবং টুকরো অংশ বের করা হয়। ওসটিওয়াইট (নতুন হাড়) হাড় ও তরুনাস্থির আলাদা অংশ এবং লুজ বডি রিমোভ কর হয়। সাইনোভিয়াল বায়োপসি ও ওয়াশআউট আর্থোস্কোপি দিয়ে করা হয়। প্যাটেলা বা নি ক্যাপ পুনঃ স্থাপন ও লিগামেন্ট তৈরি করা হয়। জোড়ার সমস্যা কনজারভেটিভ বা মেডিকেল চিকিৎসায় ভালো না হলে এবং যে ক্ষেত্রে আর্থ্রোস্কোপিক সার্জারি প্রথম থেকেই প্রয়োজন সেক্ষেত্রে অভিজ্ঞ আর্থ্রোস্কোপিক সার্জনের পরামর্শ নেয়াই শ্রেয়। আর্থ্রোস্কোপিক সার্জারির পর নিয়মিত এবং উপযুক্ত পরিচর্যার মাধ্যমে রোগী দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবে।

 

ডা. জিএম জাহাঙ্গীর হোসেন

কনসালটেন্ট হাড়, জোড়া, ট্রমা ও আর্থ্রোস্কোপিক সার্জারি

ডিজিল্যাব মেডিক্যাল সার্ভিসেস (ইনডোর স্টেডিয়ামের সামনে), মিরপুর,  ঢাকা।

ইডেন মাল্টি কেয়ার হাসপাতাল, সাত মসজিদ রোড, ধানমন্ডি, ঢাকা।


  • 0

মোবাইল ফোন এবং ক্যান্সার

মোবাইল ফোন এবং ক্যান্সার

 

ব (শেষে মানুষের শরীরে সম্ভাব্য ক্যান্সার উপাদানের তালিকায় আমাদের নিত্য ব্যবহার্য অতিপ্রিয় মুঠোফোনের নামও উঠেছে। সম্প্রতি ক্যান্সার গবেষণার আর্ন্তজাতিক সংস্থার (International Agency for Research on cancer, IARAC) ১৪টি দেশের ৩১ জন ক্যান্সার গবেষক ফ্রান্সের একটি শহরে অনুষ্ঠিত সভায় মুঠোফোনের ব্যবহারের সময় যে বিদ্যুৎ চৌম্বক তরঙ্গের সৃষ্টি হয় তা ২ বি’ ক্যাটাগরির ক্যান্সার সৃষ্টির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বলে মত প্রকাশ করেছেন। এ ধরণের বিদ্যুতে চৌম্বক তরঙ্গ গ্লায়োমা নামে পরিচিত মারাত্মক ক্যান্সার সৃষ্টি করতে পারে।

মোবাইল ফোন এবং ক্যান্সার

মোবাইল ফোন এবং ক্যান্সার

এতদিন পর্যন্ত মুঠোফোন ব্যবহারে সঙ্গে ক্যান্সারের সম্পর্কটি তেমন সু প্রতিষ্ঠিত ছিল না। ২০১০ পর্যন্ত বলা হয়েছে মোবাইল ফোনের সঙ্গে ক্যান্সারের কোন সম্পর্ক পাওয়া যায় নি। এ সম্পর্কে ডেনমার্কের যে গবেষণার ফলফলের উদ্বৃতি দেওয়া হতো তা ৪২০০০ মানুষের ওপর পরিচালিত হয়েছিল। ১৩টি দেশের ৬০০০ মস্তিষ্কের ক্যান্সারের রোগীরা ওপর একটি জরীপের ফলাফলেও বলা হয়েছিল যে তাদের মোবাইল ফোন ব্যবহারের সঙ্গে মস্তিষ্কের ক্যান্সারের কোন সম্পর্ক নেই। কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেল সাধারণত যে কানে মোবাইল ফোনে বেশি সময় ধরে কথা বলা হয় সেই দিকে। মস্তিষ্কের ক্যান্সারের প্রকোপ বেশি। কিন্তু মোবাইল ফোন ব্যবহার কারীদের মধ্যে সার্বিক ভাবে ক্যান্সারের হার বেশি নয়।   অনেকে যুক্তি দেখিয়েছিলেন যে আসলে মুঠোফোন ব্যবহারকারী গণ ঠিকভাবে মনে করতে পারেন নি তারা কোন পাশে বেশি ফোন ধরে কথা বলে থাকেন। যা হোক এ নিয়ে বিভিন্ন দেশে নান রকম পর্যবেক্ষণ  এবং গবেষণা চলছিল।

১৯৮০ দশকে মুঠোফোনের ব্যবহার দ্রুত বৃদ্ধি পেতে থাকে। মুঠোফোন যদি ক্যান্সারের কারণ হয়ে থাকে তাহলে মস্তিষ্কের ক্যান্সারের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু বাস্তবে তেমন কোন প্রমাণ মিলছিল না। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, নিউজিল্যান্ড, ডেনমার্ক, নরওয়ে, সুইডেন এবং ফিনল্যান্ড মস্তিষ্কের ক্যান্সারের রোগীর সংখ্যা সামান্যই বেড়েছে। ব্রিটেনে এ সংখ্যা অনেকদিন অপরিবর্তিতত আছে। অবশ্য মস্তিষ্কের ক্যান্সার সৃষ্টি হতে দীর্ঘ সময় লাগে। সুতারাং আগামী পাঁচ কিংবা দশ বছর ধরে পরে এ সংখ্যা বাড়বে কি না তাই এখনই বলা যাচ্ছে না।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে- মোবাইল ফোন ব্যবহার করলে কেন ক্যান্সার হবে ? এখন পর্যন্ত এর কোন সদুত্তর মেলে নি। মুঠোফোন থেকে রেডিও তরঙ্গ শক্তি নির্গত হয়। কিন্তু এই রেডিও তরঙ্গের পরিমাণ এতই কম যে তা মানুষের কোষের ডি এন এ বিনষ্ট করার জন্য বা কোনো রকম বদল ঘটানোর জন্য যথেষ্ট নয়। তবে একজন মুঠোফোন ব্যবহারকারী কতটুকু রেডিও তরঙ্গের মুখোমুখি হবে, তা অনেকগুলো নিয়ামকের উপর নির্ভরশীল।

  • মুঠফো কল এর সংখ্যা এবং কথা বলার স্থায়ীত্ব কাল।
  • বেস স্টেশন থেকে মুঠোফোনের দুরুত্ব
  • কোনো বিশেস সময় সেলফোনের ব্যবহার কারীর সংখ্যা।
  • মুঠোফোনে রেডিও তরঙ্গ প্রবাহের মান
  • হ্যান্ডসেটের আকার এবং গঠন।
  • মুঠোফোনে রেডিও তরঙ্গ প্রবাহের মান
  • হ্যান্ডসেটের আকার এবং গঠন
  • মুঠোফোন হাতে না ধরার জন্য কোন ডিভাইস ব্যবহার করা হচ্ছে কিনা ইত্যাদি। অনেক দেশেই মুঠোফোন ব্যবহারের রেডিও তরঙ্গ নিঃসরণ নিরাপদ মাত্রা মেনে চলার নির্দেশিকা রয়েছে।
  • এটা এমনভাবে নির্ধারণ করা হয়েছে যেন শিশুরা মুঠোফোন ব্যবহার করলেও তা কোন বিপদের কারণ হবে না। আর মুঠোফোনের বেস স্টেসনের আশে পাশে বসবাসকারীদের নিরপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে। বলা হয়েছে এ সমস্ত স্টেশনের আশে পাশে যে রেডিও তরঙ্গ নিঃসৃত হয় তা মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য ঝুকি সৃষ্টি করে না। তবে মুঠোফোন ব্যবহার করার কারণে এই বিপত্তি ঘটেছে।

যা হোক ‍মুঠোফোন আধুনিক প্রযুক্তি। যে কোনো নতুন প্রযুক্তির প্রয়োগ  এবং ব্যবহার নিয়ে মানুষের শংকা এবং সংশয় থাকাটা স্বাভাবিক। এতদিন পর্যন্ত মুঠোফোনের ব্যবহার নিয়ে যে সকল গবেষণা হয়েছে, তাতে বলা হয়েছে দীর্ঘ ১০ বছর মুঠোফোন ব্যবহার সম্পূর্ণ নিরাপদ। কিন্তু আরও দীর্ঘ মেয়াদি ব্যবহারের ফলাফল আমরা জানিনা। কিংবা শিশুরা মোবাইল ফোন ব্যবহার করলে, তার কোন খারাপ প্রতিক্রিয়া আছে কিনা আমরা জানিনা। এজন্য সম্প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এ বিষয়ে কতগুলি সর্তকতামুলক নির্দেশনা দিয়েছে। আর এ সকল সতর্কতার মূলে বার্তাটি হচ্ছে মুঠোফোন থেকে নির্গত রেডিও তরঙ্গের মস্তিস্কের সম্ভাব্য ক্যান্সার সৃষ্টি করার ক্ষমতা রয়েছে। এ সম্পর্কে আরও দীর্ঘ মেয়াদী পর্যবেক্ষনের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। এখন মুঠোফোন ব্যবহার গ্রুপ-২ বি জাতীয় ক্যান্সার সৃষ্টিকারী উপাদান হিসেবে গণ্য করা হচ্ছে। যতদিন পর্যন্ত এটাকে একেবারে বিপদমুক্ত ঘোষণা না দেওয়া হচ্ছে, ততদিন পর্যন্ত আমাদের সতর্কতা মূলক নির্দেশনা মেনে চলতে হবে। মার্কিন জাতীয় স্বাস্থ্য ইনস্টিস্টিউটের নির্দেশণায় সম্ভাব্য ঝুকি  এড়ানোর জন্য বলা হয়েছে-

  • মোবাইল কালের সংখ্যা সময় কাল কম রাখাটাই নিরাপদ
  • ল্যান্ডফোন থাকলে সেটা ব্যবহার করা নিরাপদ।
  • মোবাইল থেকে মস্তিষ্কের যথেষ্ট ব্যবহার রাখার জন্য বিশেষ ধরনের হস্ত মুক্ত ডিভাইস ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • ১৬ বছরের কম বয়সীরা মুঠোফোন ব্যবহার না করাই শ্রেয়। কারণ এ বয়স পর্যন্ত কোমলমতি শিশু কিশোরদের স্নায়ু ও মস্তিষ্কের নানা রকম গঠনমুলক বৃদ্ধি হয়ে থাকে। সবচেয়ে মনে রাখতে হবে প্রতিরোধ প্রতিকারের চেয়ে শ্রেয়।

ডাঃ এ আর, এম, সাইফুদ্দিন একরাম।

অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান মেডিসিন বিভাগ

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ, রাজশাহী।


  • 0

মেয়েলি সমস্যা লিউকোমিয়া

মেয়েলি সমস্যা লিউকোমিয়া

 

সাধারণ কথায় লিউকোমিয়া বলতে বুঝায় যোনির অতিরিক্ত স্বাভাবিক সাদা স্রাব। সব মেয়েরই কম বেশি সাদা স্রাব থাকে। এই সাদা স্রাবে কোন রক্ত মিশ্রিত থাকবো না, প্রদাহজন্তি কারণে কোন প্রকার দুর্গন্ধ থাকবে না, যোনিপথে বা যোনির মুখে কোন প্রকার চুলকানি থাকবে না। কারও কারও ক্ষেত্রে এ সাদা স্রাবের জন্য কাপড় বা আন্ডার গার্মেন্টস ভিজা থাকে এবং শুকালে এক ধরনের হলদেটে বা বাদামি দাগ লেগে থাকে। সব সময় ভিজা ভিজা ভাব লাগলে অস্বস্তিবোধ করেন। লিউকোরিয়া নিয়ে দুশ্চিন্তার কোন দরকার নেই। এ সাদা স্রাব স্বাভাবিক, কোন প্রকার রোগজনিত কারণ থেকে এটা হয় না বা এটা কোন জটিল সমস্যা নয়। নারী জীবনের কোনও না কোন সময় অর্থ্যাৎ বয়সের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত অতিরিক্ত সাদা স্রাবের সমস্যা হতেই পারে। ১৫-৪৫ বছর বয়সী স্ত্রীলোকের শরীরে স্ত্রী হরমোন বেশি থাকে সে জন্য যোনি কোষস্তর মোটা থাকে। যোনিতে ব্যাসিলাই নামক এক ধরনের উপকারী ব্যাকটেরিয়া থাকে। এরা যোনির মৃত কোষের ভেতর গ্লাইকোজেনকে ল্যাকটিক এসিডে রূপান্তরিত করে। এ ল্যাকটিক  এসিড যোনি পথকে ভোজা রাখতে সাহায্য করে এবং যোনির পিএইচ বজায় রেখে প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়।

মেয়েলি সমস্যা লিউকোমিয়া

মেয়েলি সমস্যা লিউকোমিয়া

কারণঃ কিছু কিছু ক্ষেত্রে দেখা যায় মেয়ে বাচ্চা জন্মের প্রথম দশদিন বাচ্চার যোনি পথে আঠালো সাদা স্রাব বের হতে থাকে। এটা দেখে ভয়ের কিছু নেই। এর কারণ হলো গর্ভকালীন সময়ে মায়ের শরীরে স্ত্রী হরমোনের আধিক্য থাকায় সেটা গর্ভফুল দিয়ে কন্যা শিশুর শরীরে প্রভাব ফেলে। মিনারটি বা প্রথম মাসিক হওয়ার আগে বা মাসিক শেষে অতিরিক্ত সাদা স্রাব হতে পারে। সাধারণ পিরিয়ড শুরু হওয়ার ৩-৪ দিন আগে এবং পিরিয়ড শেষে কয়েক দিন লিউকোরিয়া হয়ে থাকে। সাধারণত নিয়মিত মাসিকের ২ সপ্তাহ পর বা ১৪ দিনের মাথায় যখন ওভিউলিশন হয় অর্থ্যাৎ ডিম্বাশয় থেকে ডিম্বানু নির্গমন হয় তখন তলপেটে ব্যথাসহ লিউকোরিয়া হয়ে থাকে। জন্ম নিয়ন্ত্রণের বড়ি সেবন করলে অতিরিক্ত সাদাস্রাব হতে পারে। গর্ভকালীন সময়ে শরীরে স্ত্রী হরমোন অধিক মাত্রায় থাকলে লিউকোরিয়া দেখা দেয়। সন্তান প্রসবের দেড় মাস থেকে ৩-৪ মাস পর্যন্ত লিউকোরিয়া থাকতে পারে। অত্যাধিক যৌন উত্তেজনা বা আবেগেও লিউকোরিয়া হতে পারে। যৌবনের শুরুতে প্রজনন অংগে রক্ত চলাচল বেশি হওয়ার জন্যও সাদা স্রাব বেশি হয়ে থাকে। পুষ্টিহীনতা এবং অত্যধিক মানসিক চাপের কারণেও সাদা স্রাব হতে পারে।

কখন ডাক্তারের শরনাপন্ন হবেনঃ যদি সাদা স্রাব খুব ঘন ও দুর্গন্ধযুক্ত এবং  সাথে চুলকানি থাকে তবে বুঝতে হবে জরায়ুর মুখে বা যোনিপথে সংক্রমণ হয়েছে। এ সংক্রমনের জন্য ছত্রাক বা পরজীবি (ট্রাইকোমোনাস) বেশি দায়ী। ব্যাকটিরিয়ার সংক্রমনেও দুগর্ন্ধযুক্ত সাদা স্রাব হয়ে থাকে। তলপেটে  এবং যোনিপথে ব্যথা এবং জ্বর জ্বর ভাব থাকতে পারে। অনিয়িন্ত্রিত ডায়াবেটিস থাকলে এবং দীর্ঘদিন অ্যান্টিবায়োটিক খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে গিয়ে সংক্রমণ হয় এবং অতিরিক্ত সাদা স্রাব হয়। জরায়ুর মুখে দীর্ঘদিনের   ইনফেকশন বা ইরোশন থেকেও অতিরিক্ত সাদা স্রাব হয়। পিআইডি বা প্রজনন অংগের ইনফেকশন থাকলে তলপেটে, কোমর ব্যথাসহ লিউকোরিয়া হয়। এসব সমস্যায় অবশ্যই ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে।

চিকিৎসা ও প্রতিকারঃ সব সময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে, বিশেষ করে কাপড় চোপড় এবং বাথরুম। আন্ডার গার্মেন্টস খুব বেশি পরিষ্কার থাকতে হবে এবং প্রতিদিন বদলিয়ে পরতে হবে। আন্ডার গার্মেন্টস পরার আগে ইস্ত্রি করে নিলে আরও ভাল হয়। পিরিয়ডের সময় পরিস্কার এবং জীবানুমুক্ত স্যানেটারি প্যাড বা ন্যাপকিন পরতে হবে। অপরিষ্কার বা নোংরা ন্যাপকিন ব্যবহার করলে লিউকোরিয়া এবং অন্যান্য ইনফেকশন বেশি হয় এবং চুলকানির মাত্রা অতিরিক্ত হয়। এ জন্য পিরিয়ডের সময় কাপড় ন্যাপকিন ইস্ত্রি করে নিলে ইনফেকশনের হাত থেকে অনেকটা রক্ষা পাওয়া যায়। যদি দেখা যায় জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি খাওয়ার ফলে লিউকোরিয়া হচ্ছে তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ নিন এবং বড়ি বন্ধ করে অন্য ব্যবস্থা নিন। পুষ্টিহীনতা এবং ভগ্নস্বাস্থ্য থাকলে পুষ্টিকর খাবার খেয়ে স্বাস্থ্য ভাল রাখতে হবে। অতিরিক্ত মানসিক চাপ এবং দুশ্চিন্তামুক্ত থাকতে হবে। অতিরিক্ত মানসিক চাপ এবং দুশ্চিন্তামুক্ত থাকতে হবে। ইনফেকশনের জন্য অতিরিক্ত সাদা স্রাব হলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা করাতে হবে।

 

ডা. জ্যোৎস্না মাহবুব খান

মুক্তগাছা, ময়মনসিংহ


  • 0

খাৎনার খুটিনাটি

খাৎনার খুটিনাটি

পুরুষাঙ্গের সামনের বা মাথার দিকে যে অতিরিক্ত স্কিন পুরুষাঙ্গের সংবেদনশীল মাথাকে ঢেকে রাখে তা কর্তন করাকে ‍বুঝায়।

২। খাৎনা বা মুসলমানী করার প্রয়োজনীয়তাঃ

ক) ধর্মীয় কারণে মুসলমান ও খ্রিষ্টানরা খাৎনা করিয়ে থাকে।

খ) ফাইমোসিস বা প্যারা ফাইমোসিস রোগ হলে খৎনা বা মুসলমানী করাতে হয়।

ফাইমোসিস হলো পুরুষাঙ্গের মাথার দিকের চামড়া যদি এমনভাবে মুত্রনালীকে ঢেকে রাখে যে বাচ্চা বা রোগীর প্রস্রাব ঠিকমত বের হতে পারে না। যার ফলে প্রস্রাবের সময় কান্নাকাটি করে  এবং প্রশ্রাবের সময় মাথাটা ফুলে উঠে এই ভাবে বেশিদিন চলতে থাকলে প্রস্রাবে ইনফেকশন ও কিডনি ফেইলিওর হতে পারে।

খাৎনার খুটিনাটি

খাৎনার খুটিনাটি

পেরাফাইমোসিসঃ পুরুষাঙ্গের মাথারি দিকের চামড়া উল্টো টাইট হয়ে যায় যার ফলে চামড়াটাকে আর সামনে ও পিছনের দিকে নাড়াচড়া করা যায় না। এক্ষেত্রে মাথার দিকে ফুলে যায় এবং রক্ত চলাচল ব্যাহত হয়। এই উভয় ক্ষেত্রেই জরুরি ভিত্তিতে খৎনা করা প্রয়োজন। আরো নানাবিদ কারণে খৎনা দরকার হয় যেমন পুরুষাঙ্গের চামড়া অনেক সময় পেন্টের চেইনের সাথে আটকে গেলে। রোগী চাইলেও যে কোন ধর্মাবল্মবী লোকের খৎনা করা হয়।

৩। খৎনা বা মুসলমানী করালে কি উপকারিতাঃ

পুরুষাঙ্গের ক্যান্সার প্রতিরোধ করা যায়। পুরুষাঙ্গের ক্যানসার মুসলমান ও খ্রিষ্টানদের মধ্যে নাই বললেই চলে। তার প্রধান কারণ খৎনা পুরুষাঙ্গের মাথার বাড়তি চামড়ার নিচে সাদা এক ধরনের পদার্থ (স্মেগমা) জমে এবং এই স্মেগমাই পুরুষাঙ্গের ক্যান্সারের জন্য দায়ী।

৪। কখন খৎনা করা যাবে নাঃ

হাইপোসপেডিয়াসিস  এটা পুরুষাঙ্গের জন্মগত ত্রুটি। এখানে মনে হবে বাচ্চা জন্মগতভাবে খৎনা হয়ে এসেছে। এই ক্ষেত্রে পুরুষাঙ্গের বাড়তি চামড়া এই জন্মগত ত্রুটি। মেরামতের সময় প্রয়োজন হয়। তাই খৎনা করানো নিষেধ।

৫। খৎনা করার পূর্বে রক্ত  পরীক্ষা করার প্রয়োজন আছে কি?

অবশ্যই আছে। খৎনার পর কিছু খৎনার রোগীর ব্লিডিং বন্ধ হয় না এবং মরণাপন্ন অবস্থায় আমাদের কাছে হাজামরা পাঠায়। তাই খৎনার পূর্বে বাচ্চার অবশ্যই রক্তক্ষরণজনিত সমস্যা (জন্মগত) আছে কিনা তা দেখে নিতে হবে।

৬। খৎনা করার পর কি কি জটিলতা দেখা দিতে পারেঃ

-রক্তক্ষরণ বন্ধ না হওয়া ।

– হাজাম বা অনভিজ্ঞতার কারণে অতিরিক্ত বা কম চামড়া কেটে ফেলা।

– পুরুষাঙ্গের সংবেদনশীল মাথা কেটে ফেলা। হাজামরা খৎনা করে ব্লাইন্ডলি অর্থ্যাৎ মাথার অগ্রভাগে চামড়া মাথা থেকে সঠিকমত না ছাড়িয়ে না দেখে কেটে ফেলতে গিয়ে এই ধরনের মারাত্মক দুর্ঘটনা ঘটিয়ে থাকে।

ইংল্যান্ডসহ পৃথিবীর সমস্ত দেশে এই খৎনাকে অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হয় এবং খৎনা কনসালটেন্ট সার্জন ছাড়া করা হয় না। কারণ খৎনা করতে গিয়ে যে কোন দুর্ঘটনা বাচ্চার ভবিষ্যৎ জীবন জটিল করে তুলতে পারে।

 

ডাঃ এম এ হাসেম ভুঞা

অধ্যাপক সার্জারি বিভাগ

ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

 


  • 0

উদ্বেগ রোগ

উদ্বেগ রোগ

অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডার বা দুশ্চিন্তা রোগ একটি মৃদু মাত্রার মানসিক অসুখ। একটি স্বাভাবিক সীমা পর্যন্ত অ্যাংজাইটি বা চিন্তাকারকে আমরা ডিসঅর্ডারের মধ্যে গণ্য করি না।  আমাদের দৈনন্দিন কার্যকালাপ, শিক্ষাগত নানা দিক, পেশাগত প্রক্রিয়া ইত্যাদি সবকিছুতেই স্বাভাবিক সীমা পর্যন্ত চিন্তা থাকা চাই। এটিকে কিন্তু আমরা ডিসঅর্ডার বলব না। যখন এই দুশ্চিন্তার মাত্রা আমাদের নানাবিধ জ্ঞানীয় প্রক্রিয়া এবং বাস্তব জীবনের প্রেক্ষিতে সমস্যার সৃষ্টি করে তখনই তাকে আমরা ডিসঅর্ডার হিসেবে গণ্য করে থাকি। জীবনে চলতে গেলে কতক পরিমাণ অ্যাংজাইটি থাকবে। একেবারে দুশ্চিন্তা ছাড়া বেচে থাকা প্রায় অসম্ভব ব্যাপার। কিন্তু এই দুশ্চিন্তাকে একটি স্বাস্থ্যকর সীমার মাঝে ধরে রাখতে পারলে সবকিছুতে আমাদের পারফরমেন্স ঠিক থাকে। উল্লেখ থাকে যে, দুশ্চিন্তা বা অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডার যেমন বাস্তব কোনো ঘটনা ,  পরিস্থিতি, বিষয়, পরীক্ষা ইত্যাদিকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠতে পারে ঠিক তেমনি  কোনো কল্পিত বিষয়ের ওপর ভিত্তি করেও অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডার দেখা দিতে পারে। এ সময়ে ব্যক্তি তার নিজের ভেতরে ব্যক্তিনিষ্ট কতক মানসিক চাপ বা টেনশনবোধ করে এবং সাথে দেকা যায় কতক সোমাটিক বা দৈহিক উপসর্গ যেমন মাংসপেশিতে টানটান ভাব, শরীর অতিরিক্ত ঘামা, মাথা, হাত পা কাপা, ঘনঘন শ্বাস প্রশ্বাস নেয়া বা হার্টবিট বেড়ে যাওয়া ইত্যাদি কতিপয় উপসর্গ। অনেক সাইকোলজিক্যাল সমস্যায় সাথে সমন্বিত হয়ে এই অ্যাংজাইট ডিসঅর্ডার দেখা দিতে পারে। তাই অন্যান্য মানসিক সমস্যার সাথে যেহেতু এর যোগসুত্রতা রয়েছে ফলে প্রকৃত সমস্যাটি কী বা  এই্ অ্যাংজাইটি ডিসসঅর্ডারের মূল কারণগুলো কী সেগুলো আগে নিশ্চিত করা যায়। যদি অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডার রোগ হিসেবে নির্ণয় করা হয় তবে দেখা যাবে সুনির্দিষ্টভাবে এই ডিসঅর্ডারের যেসব উপসর্গ রয়েছে সেগুলোই রোগীর মাঝে মূল উপসর্গ হিসেবে বিরাজ করছে। অবশ্যিই  এটা ঠিক যে, অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডার খুব প্রচলিত একটি মৃদুমাত্রার মানসিক ব্যাধি।

উদ্বেগ রোগ

উদ্বেগ রোগ

কারণ

এই ডিসঅর্ডার বা অসুখটির সাথে অনেকগুলো কারণ যোগসাজশ থাকতে পারে। এই নিয়ে পরিচালিত হয়েছে নানা ধরনের গবেষণা নিরীক্ষা। মনোবিজ্ঞানী এবং মনোচিকিৎসকরা অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডারের উদ্ভব সম্পর্কে বলেতে গিয়ে প্রথমত উল্লেখ করেছেন হেরিডিটরি ফ্যাক্টর বা বংশগত উপাদান। দেখা গেছে যে,  পিতা মাতার মাঝে এই ডিসঅর্ডারের নানা উপসর্গ ‍থাকলে অন্যদের অপেক্ষা তাদের সন্তানদের মাঝে এই অ্যাংজাইটি অসুখটি পরিলক্ষিত হয়েছে। শিশু যখন তার একেবারে প্রারম্ভিক জীবনের দুই থেকে পাচ বছর বয়স পর্যন্ত আবেগ জনিতভাব ত্রুটিপূর্ণ অভিজ্ঞতা বা বিকাশের শিকার হয় তবে জীবনের পরবর্তী পর্যায়ে তার এ ডিসঅর্ডারটি দেখা দিতে পারে। যেসব শিশু তাদের শৈশবকালে অনিরাপত্তা/ নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে, তাদের যদি আদর, ভালবাসা বোধের অভাব থাকে, তাদের কেউ যদি নজর না দেয়, অন্য ভাইবোনদের সাথে বাবা মা যদি হরহামেশা শিশুকে তুলনা করে এসব ক্ষেত্রে দেখা যায় শিশুর নিজের প্রতি নিজের বিশ্বাস বা আত্মবিশ্বাস অনেক কমে যায়। কাজেই শিশুটি কি পরিবেশে বড় হলো তার ওপর ভিত্তি করেও পরবর্তী অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডারের সূচনা হওয়া খুব স্বাভাবিক ঘটনা। প্রাপ্তবয়ষ্কদের ক্ষেত্রে প্রেম বিরহ, পিতা মাতার মৃত্যু, প্রিয়জনকে হারানো, নিজের ক্যারিয়ার বা ভবিষ্যৎ নিয়ে হতাশা এবং বাসা বাড়িতে যদি দীর্ঘমেয়াদি কোনো মানসিক জটিলতা চলতে থাকে তাদের ক্ষেত্রে অ্যাংজাইটি বা দুশ্চিন্তা রোগ বেশি হয়ে থাকে। পরিলক্ষিত হয়েছে এরা দৈনন্দিন রুটিন অনুযায়ী কাজ অতিরিক্ত দুশ্চিন্তায় জন্য করতে পারে না। অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডারের উপসর্গগুলোর কতক মনোগত এবং কতক শরীরে প্রকাশিত হয়। নিচে আমরা কিছু উপসর্গ উল্লেখ করলাম-

মাসল টেনশন বা মাংসপেশিতে টানটান অনূভূতি, অস্তিরতাবোধ, হাত পা কাপা, মাংসপেশিতে ব্যথা,  মুখমন্ডল টেন্স বা টানটান লাগা, হৃদকম্পন বেড়ে যাওয়া শরীর অতিরিক্ত ঘামা, হাত পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়া, মুখ শুকিয়ে যাওয়া, মাতা হাল্কাবোধ হওয়া, মাতায় চাপচাপ অণূভূতি লাগা, পাকস্থলিতে অস্বাচ্ছন্দ্যতা, খাবারের অনীহা বা খাবার রুচি কমে যাওয়া, এই বুঝি কোনো বিপদ সামনে আসবে এ রকম কোনো ভিতি সব সময় মনে বিরাজ করা, হাইপার অ্যালার্টনেস বা অতি সচেতনতাবোধ, উত্তেজনাবোধ, অল্পতে বিরক্তভাব প্রকাশ করে,  মনোযোগের ঘাটতি, মাতা ভারি ভারি লাগা, অল্পতেই একাগ্রতা ও ধৈর্য্য হারিয়ে ফেলা।

অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডারের যেসব নানা ধরনের উপসর্গ রয়েছে সেগুলোর সঙ্গে মিল আছে এ রকম অনেক মানসিক অসুখও রয়েছে। তাই সম্পূর্ণভাবে অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডারকে রোগ হিসেবে নির্ণয় করতে গেলে  একে  একটি বিশেষ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নিচের কতক মানসিক এবং শারীরিক সমস্যা থেকে আলাদা করতে হয়। এগুলো হলো-

বিষণ্নতা (সাথে উত্তেজনা), প্রারম্ভিক পর্যায়ের সিজোফ্রেনিয়া, সুপ্রাভেন্টিকুলার টেকিকার্ডিয়া,  থাইরয়েড গ্ল্যান্ডের অল্প কর্মক্ষমতা বা হাইপোথাইরয়েডিজম, মাইগ্রেন।

চিকিৎসা

সমর্থনমূলক সাইকোথেরাপিঃ দেখা গেছে,  যেসব রোগী এই মানসিক অসুখটিতে ভুগছেন তারা অত্যন্ত বেশি দুশ্চিন্তাগ্রস্থ এবং অস্থিরতা সম্পন্ন মানসিক অবস্থা নিয়ে সাইকিয়াট্রিস্টের কাছে এসে থাকেন। এ জন্য রোগীর নানা ধরনের কষ্ট এবং যে সমস্যা সেগুলো কমাতে ডাক্তার চেষ্টা করেন এবং সমস্যার মূলে কী রয়েছে সে কারণগুলো খুজে বের করার চেষ্টা করেন। এ কারণগুলো খুঁজে বের করে এর নানা ধরনের সমাধান, ত্রুটি বিচূতি, ভালো মন্দ ইত্যাদি ডাক্তার সাহেব রোগীর কাছে তুলে ধরেন। প্রথমত তিনি রোগীকে আশ্বস্ত করে থাকেন যে, এ রকম মানসিক সমস্যা হতেই পারে, এটি একটি মৃদু প্রকৃতির মানসিক সমস্যা এবং এর খুব ভালো চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা রয়েছে। রোগী যাতে দুশ্চিন্তা উদ্রেককারী পরিস্থিতি এড়িয়ে না চলে বরং যেসব পরিস্থিতিতে তার অ্যাংজাইটি বেড়ে যায় সেগুলোকে মোকাবিলা করতে পারে সে জন্য নানা দৃষ্টিকোণ থেকে মনোবিশ্লেষণ করে ডাক্তার রোগীকে সাহস জুগিয়ে থাকেন। যেহেতু এই রোগটিতে কোনো কিছুতে মনোনিবেশ করার ক্ষমতা, সিদ্ধান্ত নেয়ার দক্ষতা এবং অল্পতে একাগ্রতা হারিয়ে ফেলা- এসব উপসর্গ থাকে তাই রোগী প্রায়শ ছোটখাটো সমস্যাকেও অনেক বড় মনে করে, সাহস করে এগোতে পারে না। সে ক্ষেত্রে অভিজ্ঞ সাইকিয়াট্রিস্ট বা মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞ নানা ধরনের কগনিটিভ বা জ্ঞানীয় আলোচনার মাধ্যমে রোগীকে তার  সমস্যার সমাধানের সত্যিকার চিত্রটি তার সামনে তুলে ধরেন। ফলে রোগী সাহস নিয়ে কাজটি সমাধান করতে পারেন। এভাবে আস্তে আস্তে করতে করতে দেখা যায় যেসব পরিস্থিতিতে আগে ডিসঅর্ডারের উপসর্গ দেখা দিত সেগুলো কমে যায়।

 

বিহেভিয়ার থেরাপি

আচরণগত চিকিৎসা ব্যক্তিকে তার সমস্যা সমাধানে নানাভাবে সহায়তা করে থাকে। যেহেতু অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডারকে এক ধরনের মানসিক অসঙ্গতি বিধানের এবং অসঙ্গতিমূলক আচরণেল সাথে তুলনা করা হয় তাই এক্ষেত্রে বিহেভিয়ার মোডিফিকেশন থেরাপি বেশ ভালো ভূমিকা রাখে। রোগীর যেসব উপসর্গ মনে এবং শরীরে বিরাজ করে মোডিফিকেশন থেরাপির মাধ্যমে সেগুলোকে আস্তে আস্তে দূর করা যায়। অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডারের বিহেভিয়ার থেরাপির মাঝে রয়েছে-

ক) মাসকুলার রিরাক্সেশন টেকনিকঃ এই পদ্ধতির মাধ্যমে সারা শরীরের মাংসপেশীতে প্রথমে ইচ্ছকৃতভাবে এক ধরনের টানটান অনূভূতির সৃষ্টি করা হয়। পরে ধারাবাহিকভাবে আবার রিলাক্স বা শিথিলদায়ক অণূভূতির সঞ্চার করা হয়। এভাবে কিছুক্ষণ করা হলে মনোপাত এবং শারীরিক যেসব উপসর্গ রয়েছে সেগুলো কমে যেতে শুরু করে। এগুলো বিশেষজ্ঞ সাইক্রিয়াটিস্টের কাছে থেকে শিখে নিয়ে ব্যাক্তিগত পর্যায়ে করা যেতে পারে।

খ) ইয়োগা ঃ ইয়োগা এক বিশাল ধরনের যোগব্যায়াম পদ্ধতি। এটি দুশ্চিন্তা রোগের চিকিৎসা হিসেবে ভারত, চীন, জাপান   এমনকি পশ্চিমের দেশগুলোতেও বহুলভাবে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। এগুলো ডাক্তারের পরামর্শক্রমে করলে দুশ্চিন্তা রোগের নানা উপসর্গ থেকে  রেহাই পাওয়া যায়।

গ) সিস্টোমিক ডিসেনসিটাইজেশন টেকনিকঃ  এটির মাধ্যমে রীতিবদ্ধভাবে যেসব বিশেষ পরিস্থিতিতে রোগীর মাঝে দুশ্চিন্তাকারক মানসিক অবস্থা বিরাজ করে সেগুলোকে মোকাবিলা করে ধীরে ধীরে দুশ্চিন্তার মাত্রা কমিয়ে আনা হয়। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় রোগীর মাঝে এক ধরনের ভাসমান দুশ্চিন্তার মতো মানসিক অবস্থা বিরাজ করে। এর কোনো কারণ খুজে বের করা যায় না। এ কারণবিহীন দুশ্চিন্তারোগ বা বাকে ফ্লিফ্লটিং অ্যাংজাইটি বলে তার চিকিৎসা করা একটু জটিল। তবে এটা ঠিক যে, নানা ধরনের মনোভঙ্গি বা দৃষ্টিকোণ থেকে ব্যাখা করে মনোচিকিৎসক যখন রোগীকে বারবার আশ্বস্থ করে এবং রোগীর মনের ভেতরের সতিক্যার সাহসকে জাগিয়ে তোলে তখন অনেকটা ইতিবাচক ফল পাওয়া যায়।

ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা

দুশ্চিন্তা রোগ চিকিৎসা করতে প্রেসক্রিপশনে যত রকম ড্রাগ বা ওষুধ দেয়া যায় ততই  ভালো। তাই সুনির্দিষ্ট এবং কম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পন্ন ওষুধ অল্প কয়েক দিনের জন্য দেয়া যেতে পারে। কিন্তু এর মূল চিকিৎসা হলো সমর্থনমুলক সাইকোথেরাপি ও বিহোভিয়ার থেরাপি। এগুলোতে কাজ না হলে সাথে ওষুধ ব্যবহার করা যায়। তবে আমাদের দেশের প্রেক্ষিতে দেখা গেছে, ডাক্তাররা এ  রোগের চিকিৎসায় হরহামেশা দীর্ঘদিনের জন্য ওষুধ প্রয়োগ করে থাকেন। আসলে এ ধরনের চিকিৎসা অর্জন করা উচিত।

 

অধ্যাপক ডা. এ এইচ মোহাম্মদ ফিরোজ

পরিচালকঃ মনোজগত সেন্টার, রোড নং-৪, বাড়ি নং-৫, ধানমন্ডি , ঢাকা।


  • 0

এইডসের কারণে বক্ষব্যাধি

 এইডসের কারণে বক্ষব্যাধি

এইডস নামটি শুনলেই আমাদের সকলের মধ্যে এক ধরনের আতঙ্কের সৃষ্টি হয়। কারণ এইডস হচ্ছে একটি মরণঘাতক সংক্রামক ব্যাধি। বর্তমানে আমাদের দেশসহ সারা বিশ্বের চিকিৎসা বিজ্ঞান অনেক উন্নত। কিন্তু এইডস এমন একটি ব্যাধি যার কোন চিকিৎসা পদ্ধতি বা প্রতিষেধক এখনও কোথাও আবিষ্কৃত হয়নি। এ বাধির শেষ পরিণতি হচ্ছে দুঃসহনীয় মৃত্যু। বুকের অসুখ বিসুখের সাথে এর ওতঃপ্রোত ও সম্পর্ক। এইডস হচ্ছে একটি জীবানু ঘটিত রোগ। এইডস জীবানুর সম্পূর্ণ নাম হচ্চে এইচআইভি। এইডস একটি ভয়ংকর মরণব্যাধি। এইডসের জীবানু যদি কোন ব্যক্তির দেহে সংক্রমতি হয় তাহলে তার দেহের সকল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট হয়ে যায়। এইডসের জীবানু দ্বারা আক্রান্ত রোগীর রোগপ্রতিরোধ শক্তি সম্পূর্ন ধ্বংস হয়ে যায় এবং রোগী ধীরে ধীরে মৃত্যুর কোলে পড়ে।

এইডস

এইডস

বিভিন্ন ধরনের রোগের জীবানুর কারণে এইডস রোগী অতিদ্রুত বক্ষ ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে থাকে, যেমন নিউমোসিসটিস কেরি নাই, নানা প্রকারের যক্ষার জীবানু, সাধারণ রোগ জীবানু (নিউমোক্কাস, এইচ ইনফ্লুয়েঞ্জি) ইত্যাদি। এ সকল জীবানুর মধ্যে নিউমোসিসটিস কেরি নাই নিউমোনিয়ার জীবানু এইডস রোগীদের বক্ষব্যাধির একটি অন্যতম কারণ।

দেশ ভেদে এইচআইভিতে আক্রান্ত ব্যক্তিদের বুকের রোগ বালাইয়ের কারণও বিভিন্ন হয়ে থাকে। যেমন- আফ্রিকার এইডস রোগীরা বক্ষব্যাধিতে ভুগে যক্ষার জীবাণু দ্বারা। কিন্তু ইউরোপ ও উত্তর আমেরিকায় বক্ষব্যাধির প্রধান কারণ হল নিউমোনিয়া জীবানু।

কোন ব্যাধির জীবানু দ্বারা এইচ আইভিতে আক্রান্ত ব্যক্তি বক্ষ ব্যাধিতে ভুগছে তা নির্ণয় করা চিকিৎসকগণের নিকট একটু কষ্টসাধ্য কাজ। এর মধ্যে যক্ষার জীবানু দ্বারা যদি কোন ব্যক্তি বক্ষব্যাধিতে আক্রান্ত হয় তবে সেই ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া খুবই জটিল। কারণ এসকল ক্ষেত্রে কফ পরীক্ষা, বুকের এক্সরে এবং টিউবারকুলিন টেস্ট ইত্যাদি দ্বারা খুব বেশি সুফল পাওয়া যায না।

নিউমোসিসটিস কেরি নাই নিউমোনিয়ার জীবানু দ্বারা আক্রান্ত ব্যক্তির রোগ নির্ণয়ের জন্য কফ পরীক্ষা করা হয়, আবার কখনও ব্রংকোসকপির সাহায্যেও রোগ নির্ণয় করা হয়।

এইডসে আক্রান্ত কোন ব্যাক্তির দেহে যদি যক্ষার জীবানু সংক্রমিত হয় তবে তার ফুসফুসের বিশেষ ক্ষতি হবে না। কারণ এই জীবানু ফুসফুস ছাড়া অন্য স্থানে যেমন প্রন্থিতে সংক্রামণ ঘটায়। নিউমোসিটিস কেরি নাই নিউমোনিয়ার জীবানু দ্বারা আক্রান্ত ব্যক্তির ফুসফুস বিশেষভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

যক্ষার বা নিউমোনিয়ার জীবানুকে ধ্বংস করার জন্য চিকিৎসকগণ সাধারণত কোট্রামোক্সজল ব্যবহার করে থাকেন। তবে এতে রোগী অল্প কিছুদিন সুস্থ থাকেন। পরে আবার জীবানু দ্বারা আক্রান্ত হন। কারণ এই জীবাণু একেবারে নির্মূল করা সম্ভব নয়। যক্ষার জীবানু দ্বারা আক্রান্ত ব্যক্তির কাশি সাধারণত কখনও প্রচন্ড আকার ধারণ করে না। সব সময় খুশখুষে কাশি থাকে এবং কফের পরিমাণও অল্প হয়ে থাকে।

এইচআইভিতে আক্রান্ত রোগীর দেহে নিউমোনিয়ার জীবানু বিশেষভাবে ফুসফুসেই আক্রমণ করে। ফলে রোগী প্রচন্ড জ্বরে ভোগে, খাবারে অনীহা দেখা দেয়। ওজনের পরিমাণ কমতে থাকে এবং রোগীর ধীরে ধীরে দুর্বল হয়ে মৃত্যুর পথে চলে যায়।  এইডস রোগীদের যক্ষার জীবানু ঘটিত বক্ষব্যাধির চিকিৎসা করা কষ্টসাধ্য ব্যাপার। এসকল ক্ষেত্রে যক্ষার প্রতিষেধকসমূহ সাধারনত রোগীর দেহে কোন কার্যকরী ফল দেয় না। এইডস  এমন একটি ব্যাধি যার প্রতিকার কখনও সম্ভব নয়। তবে একটু সচেতন থাকলে এটি খুব সহজেই প্রতিরোধ করা সম্ভব। বাংলাদেশসহ সমস্ত বিশ্বে এইচআইভি রোগীর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। তাই আমাদের সকলের উচিত সচেতন হয়ে চলা এবং সকলকে এ ব্যাপারে সর্তক করা। আমাদের সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা দ্বারাই সম্ভব এ অভিশাপ থেকে সকলকে মুক্ত করা।

 

ডা. কে এম মোস্তফা হোসেন

পরিচালক, জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল

মহাখালী, ঢাকা।